বাংলাদেশি মূলধারার বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যমে ১২ অক্টোবর একটি খবর প্রকাশিত হয়েছে। কালের কণ্ঠ শিরোনাম করেছে, “শেখ হাসিনাকে ‘মা’ ডাকলেন রানি মুখার্জি”। (দেখুন প্রথম স্ক্রিনশট)।

লিংক: www.kalerkantho.com/online/entertainment/2019/10/12/825752…

বাংলানিউজের শিরোনাম, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনায় মুগ্ধতা রানির, ডাকলেন মা”

লিংক: www.banglanews24.com/entertainment/news/bd/745479.details…

ডেইলি সান এর শিরোনাম, “Bollywood actress Rani Mukherjee charmed by PM Hasina, calls her mother”

লিংক: https://daily-sun.com/…/Bollywood-actress-Rani-Mukherjee-ch…

আরটিভি অনলাইনের শিরোনাম, “শেখ হাসিনাকে ‘মা’ বলে সম্বোধন করলেন রানি মুখার্জি”

লিংক: www.rtvonline.com/…/শেখ-হাসিনাকে-মা-বলে-সম্বোধন-করলেন-রানি-…

যুগান্তর অনলাইনের শিরোনাম, “শেখ হাসিনাকে মা ডাকলেন ভারতীয় অভিনেত্রী রানি মুখার্জি” (পরে সরিয়ে ফেলেছে প্রতিবেদনটি)।

কালের কণ্ঠের প্রতিবেদনটি হুবহু তুলে ধরা হলো–

//
বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ব্যক্তিত্ব এবং সম্প্রতি ভারত সফরে দিল্লিতে তার দেয়া ভাষণের প্রশংসা করে তাকে ‘মা’ বলে ডেকেছেন বলিউডের জনপ্রিয় অভিনেত্রী রানি মুখার্জি।

সম্প্রতি ‘ইন্ডিয়া ইকোনমিক সামিট-২০১৯’ উপলক্ষে চার দিনের ভারত সফরের দ্বিতীয় দিন নয়াদিল্লির আইটিসি মৌর্য হোটেলে বাংলাদেশ-ভারত বিজনেস ফোরামের (আইবিবিএফ) উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ভারতের পেঁয়াজ রফতানি বন্ধের বিষয়ে বক্তব্য দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী হিন্দি ভাষায় বলেছিলেন, পেঁয়াজ মে থোড়া দিক্কত হো গিয়া হামারে লিয়ে। মুঝে মালুম নেহি, কিউ আপনে পেঁয়াজ বন্ধ কর দিয়া! ম্যায়নে কুক কো বোল দিয়া, আব সে খানা মে পেঁয়াজ বন্ধ কারদো (পেঁয়াজ নিয়ে একটু সমস্যায় পড়ে গেছি আমরা। আমি জানি না কেন আপনারা পেঁয়াজ বন্ধ করে দিলেন। আমি রাঁধুনিকে বলে দিয়েছি, এখন থেকে রান্নায় পেঁয়াজ বন্ধ করে দাও)। অনুষ্ঠানে উপস্থিত দুই দেশের ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা প্রধানমন্ত্রীর এই বক্তৃতার সাড়া দেন হাসি আর করতালিতে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এভাবে হিন্দি বলার দক্ষতা দেখে মুগ্ধ হয়েছেন বলিউড অভিনেত্রী রানি।

নিজের ফেসবুক পেজে পোস্টের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দক্ষ নেতৃত্ব আর বাংলাদেশর উন্নয়নের কথা উল্লেখ করেন রানি। ওই ফেসবুক পোস্টে শেখ হাসিনাকে এশিয়ার ‘গ্রেট লিডার’ হিসেবেও আখ্যা দিয়েছেন তিনি। পাশাপাশি শেখ হাসিনাকে ‘মা’ বলেও ডেকেছেন বলিউডের এ বাঙালি অভিনেত্রী।

উল্লেখ্য, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে শেখ হাসিনার সাক্ষাতের সময় সঙ্গে ছিলেন রানি মুখার্জিও। যশরাজ ফিল্মসের প্রতিনিধি হিসেবে রাষ্ট্রীয় ওই অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছিলেন রানি।

ওই ফেসবুক পোস্টে ভারত-বাংলাদেশের যৌথ প্রযোজনায় নির্মিত ‘বঙ্গবন্ধু’ চলচ্চিত্রের জন্য শুভকামনা জানান রানি। পাশাপাশি দুই দেশের সংস্কৃতিতে নিজের ভূমিকা রাখার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন তিনি। একই সঙ্গে শিগগিরই বাংলাদেশে আসার ইঙ্গিত দিয়েছেন বলিউড নায়িকা।
//

রানি মুখার্জির ফেসবুক পোস্টটি খুঁজতে গিয়ে দেখা গেল ফেসবুকে তার নামে বহু প্রোফাইল ও পেইজ আছে। কিন্তু কোনোটিই বিশ্বাসযোগ্য নয়। পেইজগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ফলোয়ারওয়ালা যেটি পাওয়া গেল সেটিতে ২ লাখের বেশি কিছু ফলোয়ার আছেন। বলিউডের অন্যান্য সুপারস্টারদের ফলোয়ারদের যেখানে মিলিয়ন মিলিয়ন ফলোয়ার থাকেন সে তুলনায় এটি অবিশ্বাস্যভাবে কম। অন্যান্য কারণেও ওই পেইজটি রানির নিজস্ব পেইজ নয় বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। এবং এসব পেইজে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে কোনো পোস্টও নেই।

শেখ হাসিনাকে ‘মা’ বলে সম্বোধন করে এবং সংবাদমাধ্যমের যেসব কথিত বক্তব্য এসেছে সেগুলো তিনি কোন পেইজে পোস্ট আকারে প্রকাশ করেছেন খুঁজতে আমরা ইংরেজি দৈনিক ডেইলি সান এর রিপোর্টের সহায়তা নিই।

পত্রিকাটিতে উল্লেখ করা রানি মুখার্জির ইংরেজি নামের বানান Rani Mukherjee এর সাথে শেখ হাসিনার নাম ইংরেজিতে লিখে এবং তাদের রিপোর্টে উল্লেখ করা রানির বক্তব্যের দুটি কীওয়ার্ড নিয়ে ফেসবুকে সার্চ দেয়ার পর পোস্টটির সন্ধান পাওয়া যায়।

লিংক হচ্ছে এই: https://www.facebook.com/watch/?v=847583935636512 (দেখুন ২য় স্ক্রিনশট)।

ভাষাগত ভুল-শুদ্ধের মিশ্রণে লেখা পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলো–

//
“Such good hindi she speaks !! Welcome madam prime minister #Sheikh_Hasina to India ! what a perfect speech……. Surely India should inform to Bangladesh before taking any decisions. How gentle she is…. I love her leadership. I think she could be a great leader in the history of asia. She is a very progressive woman… That’s why #Bangladesh doing well these days.
Bangladesh Prime Minister Sheikh Hasina who is on a 4 day visit to India spoke at the India- Bangladesh Business Forum in the capital. She said that she has asked her cook to stop using onions after India banned its export. She said that next time, India should notify Bangladesh beforehand the next time they said such a decision. Sheikh Hasina is to meet Prime Minister Modi on Saturday and also hold bilateral talks. The Teesta water sharing issue and the Rohingya issue remains on top of the agenda.”

//

গত ৪ অক্টোবর প্রকাশ করা পোস্টটির বক্তব্যের বিভিন্ন অংশ বাংলাদেশি মিডিয়ার সংবাদের সাথে হুবহু মিলে যায়। তবে কিছু সংবাদমাধ্যমে উল্লেখ করা তথ্যের একাংশ এই পোস্টে নেই। বিশেষ করে ‘মা’ বলে সম্বোধনটি নেই। আছে ‘madam’ সম্বোধন।

কয়েকটি বাক্যের ভুল ইংরেজি গঠন দেখে সন্দেহ হলে পেইজটি সম্পর্কে প্রাথমিক কিছু তথ্য যাচাই করে দেখি আমরা। এতে দেখা যায় মাত্র ৮ হাজারের কিছু বেশি ফলোয়ার রানি মুখার্জির পেইজে! এটা অস্বাভাবিক! ৮ মিলিয়ন (৮০ লাখ) হলে স্বাভাবিক মনে হতো!

পেইজটির Page Transparency রিপোর্ট চেক করে দেখা গেল, এটি চলতি বছরের ২ এপ্রিল ক্রিয়েট করা। এবং সবচেয়ে বিষ্ময়কর তথ্য হচ্ছে, পেইজটি চালান যে দুইজন এডমিন উভয়েই তারা বাংলাদেশে বসে চালান এটি! (Page Transparency রিপোর্ট দেখুন ৩য় স্ক্রিনশটে)।

Page Transparency রিপোর্টে Facebook লিখে রেখেছে নিচের কথাগুলো–

“People Who Manage This Page-
Primary country location of people who manage this Page includes:
Bangladesh (2)”

আরেকটি গুরুত্বপূর্ণ তথ্য হলো, রানি মুখার্জির নামের বানান পেইজটিতে ভুলভাবে দেয়া! এই পেইজে তার নামের Rani Mukherjee দেয়া হয়েছে। কিন্তু উইকিপিডিয়াতে দেয়া এবং ভারতের শীর্ষস্থানীয় সব সংবাদমাধ্যমে তার নামের বানান সব সময় লেখা হয় Rani Mukerji. আমরা গুগলে (নিউজ) Rani Mukherjee লিখে সার্চ দেয়ার পরও টপ রেজাল্টগুলোতে ভারতের শীর্ষস্থানীয় যেসব সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন আসে সেগুলোতে Mukerji বানানটিই আসে। (দেখুন ৪র্থ স্ক্রিনশটে)।

এছাড়া এই পেইজের ১৫টির বেশি পোস্ট যাচাই করে দেখা গেছে কিছু পোস্টের ভাষা অতিমাত্রায় রাজনৈতিক এবং প্রপাগান্ডামূলক। (ভাষাগত ভুল-শুদ্ধের মিশ্রণ তো আছেই)।

সব মিলিয়ে এটা নিশ্চিত হওয়া যায় যে, এই পেইজটি রানি মুখার্জির নয়, বরং এটি ফেইক পেইজ।

প্রসঙ্গত, এই পেইজটি থেকেই আলোচ্য পোস্টটি প্রকাশের পরদিন ৫ অক্টোবর নরেন্দ্র মোদি-শেখ হাসিনার যৌথ সংবাদ সম্মেলনের ২১ মিনিটের এবং একটি রাউন্ড টেবিল সেশনের ১৯ মিনিটের ভিডিও আপলোড করা হয়।

তদন্ত: BD FactCheck